Gay sex story – বাড়ির ছোট ছেলে ছটকুর জ্বালা – ৩


Mr.Talukder 2018-10-06 Comments

This story is part of a series:

Gay sex story – নতুন মালের সাথে থ্রিসাম – ১

ঐদিনের কথা তো বললামই সাফি ভাইয়া কেমন বদমাইশি করে চলে গেল। সকালে ঘুম থেকে উঠে কেমন ফ্রেশ ফ্রেশ লাগছিল but ass এ অনেক pain করতেছিল বাল! দেখলাম সালমান ভাইয়া আর নাইম ভাইয়ারা এখনো যায় নি। আমি নাস্তার টেবিলে এসে নাস্তা করতে লাগলাম তখন ছোট ভাইয়ার রুম থেকে সালমান ভাইয়া আমার দিকে কেমন করে যেন তাকালো তারপর আবার হাসলো, আমি আর তেমন পাত্তা দিলাম না, হয়তোবা আমি অমন করে হাটতেছিলাম বলে তাকাইছে। আমি নাস্তা করে কলেজে চলে গেলাম, বাল! পাছার পেইনের কারনে রিকশাতে বসতে পারতেছিলাম না!

দিনকাল সব ঠিকঠাকই চলতেছিল, রেগুলার বিএফ এর সাথে মিট আড্ডা স্ট্যাডি কলেজ টিউশন ইত্যাদি সবই ঠিকঠাক, আসলে কলেজে যাওয়া আর স্যারের কাছে পড়তে যাওয়া আমার কাছে ডেটিং এর সমান ছিল, কারন, আমার বিএফ আমারই কলেজের সিনিয়র ছিল আর স্যার এর কাছে আমি যেই টাইমে যেতাম ও ঠিক সেই টাইমে ওদের টাইম ঠিক করলো। জানি না কিভাবে বন্ধুদের রাজি করালো, আমার বিএফ এতো কিউট আর হ্যান্ডস্যাম যে বলে বুঝাতে পারবো না! আমার কাছে মাঝে মাঝে মনে হয়, আমি ওর যোগ্য না! ও আমার থেকে অনেক ভালো, সুন্দর আর লয়াল ছেলে ডিজার্ভ করে। স্যারের বাসায় আর কলেজে কত হট হট পোলাগুলা! বাট আফসোস একটার দিকেও তাকাতে পারিনা! ও যদি দেখতে পায় অর বুঝতে পারে , তাহলে আমার চোখ দুইটা খুলে আমার হাতে ধরায় দিবে! এই ভয়ে আমি বলতে পারিনা সাফি ভাইয়ার সাথে যে ভুলটা করেছি। Always একটা ভয় কাজ করতো অরে নিয়া, কারন রাগ উঠলে ও গায়ে হাত তুলতো আবার কনফিডেন্টও আছে যে, মারতে পারে বাট ছেড়ে দিবে না! ওরে আর কিছু বলা হয় নি এই বিষয়ে, কিন্তু সাফি ভাইয়া ১-২ দিন পর পর কল দিতো। ফোনে অবশ্য অন্য কিছু বলতো না! জাস্ট হাই হেলো হেনতেন, আমিও বুঝতাম, এই কল দেয়ার কারণটা, আসলে উনি আমার সাথে কন্টাক্ট টা ঠিক রাখতেছেন, সুযোগমত যাতে কাছে নিতে পারেন, এই রাস্তা টা ক্লিয়ার রাখতেছেন, বয়স তো আর কম হয়নি, সবই বুঝি, একদিন কলেজ শেষে আমার বিএফ আমাকে বাসায় নামিয়ে দিচ্ছে, ঠিক তখনি ছোট ভাইয়া আর সাফি ভাইয়া বাসা থেকে বেরুচ্ছে। তখন ভাইয়া বলল, “কি রে আজ এতো লেইট যে!” তখন আমি বললাম “ভাইয়া ফ্রেন্ডস দের সাথে একটু আড্ডা দিতেছিলাম।”

সাফি ভাইয়া আমার পাছায় থাপ্পর দিলো ( ছোট ভাইয়া আর আমার বিএফ এর সামনে) আর বলল “কলেজ শেষে আবার আড্ডা কিসের! আড্ডা দিলে ফ্রেন্ডস দের বাসায় নিয়া আইসা আড্ডা দিবি! বাইরে ক্যান?” আর আমার কানে কানে ফিসফিস করে বললো “মালটা তো অনেক বড়! তোর ফ্রেন্ড হয়লো ক্যামনে ? btw joss আছে!” ছোট ভাইয়া আর কিছু বললো না, জাস্ট বলল, ওরে বাসায় নিয়ে কিছু খাওয়ে দিস! Then চলে গেল ওরা। বাট আলিফ মানে আমার বিএফ ঠিকই খেয়াল করলো আমার আর সাফি ভাইয়ের কান্ডগুলো। ওরা চলে যাওয়ার পর আস্ক করলো ”উনি এমন করলেন ক্যন? আর ass এ হাত দিল ক্যান?” তখন আমি একটু মেজাজ দেখিয়ে বললাম “কি যে বল, উনি আমাকে ছোটবেলা থেকে বড় হতে দেখছে, আর ছোটবেলা থেকে আদর করতো, তাই এমনটা করেছে!” এই কথা শুনে আলিফ বললো “এমন বড় ভাই দের কাছ থেকে দূরে থাকবা,” ও চলে গেল আর আমিও চলে আসলাম বাসায়, যাওয়ার সময় আজ একটু পিছন ফিরে তাকালোও না!

পরের দিন কলেজে যাওয়ার পর দেখলাম, সবই ঠিকঠাক, আলিফ এসব নিয়া কিছু বলতেছে না! আল্লাহ বাঁচা গেল, ঠিকঠাক মত আর কিছুদিন গেল। হঠাৎ একদিন লেটার আসলো UK Embassy থেকে যে আম্মুকে দু এক দিনের মধ্যে UK Embassy তে যেতে বলেছে। আমরা তো মহাখুশি। আম্মু মেঝো ভাইকে বললো সাথে যাওয়ার জন্য। তখন ছোট ভাইয়া বললো উনিও যাবে আম্মুর সাথে, আম্মু মানা করলো না, বরং আমাকে সাথে যেতে বললো। আমি বল্লামঃ জার্নি ভালো লাগে না!” ছোট ভাইয়া বললঃ আরে বোকা গ্রীন লাইনের নতুন এসি বাস! জার্নি টের পাবা না! আমি রিফিউজ করলাম যেতে। ওরাও আর বেশি প্রেশার দিল না, কারন বড় ভাইয়া তো বাসায় আছে, ও যেতে পারবে না!

ব্যাঙ্কের জবে তো আর হুত করে ছুটি পাওয়া যায় না! তখন শুনলাম ছোট ভাইয়া সাফি ভাইয়াকে ফোন দিয়ে বলছে যে, “কাল আমি ভার্সিটিতে আসবো না! আম্মুর সাথে ঢাকা তে যাচ্ছি, পারলে আমার এটেন্ডেনস্টা দিয়ে দিস!” ওরা রাত ১১ টার দিকে ঢাকার জন্য রওনা হল। আর আমরা দুই ভাই যার যার রুমে চলে গেলাম। বড় ভাইয়া বলল ” ভয় পাইলে আমার রুমে এসে থাকতে পারিস!” আমি হেসে বললাম ”আমি কি আর সেই ছোট্ট সিয়াম আছি নাকি , যে ভয় পাবো কি যে বলো!”

বড় ভাইয়া কখন ঘুমাইছে জানি না! বাট আমি এক টার দিকে আলিফের ফোনটা রেখে দিলাম। ফোন রেখে চিন্তা করতেছি, কাল ওরে কলেজ শেষে বাসায় নিয়ে আইসা সারপ্রাইজ দিবো, তারপর নিজের বেডে মন ভরে রোমান্স করবো। নিজের বেডে রোমান্স উপভোগ করার মজাই আলাদা। এইসব চিন্তা করতে করতে কখন যে ঘুমিয়ে গেছি জানি না! সকালে হঠাত ঘুম ভেঙ্গে গেল। বড় ভাইয়া দরজায় ডাকতেছে। বড় ভাইয়া অফিসে চলে গেল, আমি সাওয়ার করে নাস্তা খেয়ে কলেজে যাওয়ার জন্য রেডি হচ্ছি, বুয়াকে দেখলাম লাঞ্চ রান্না করছে। এমন সময় কলিংবেল বাজলো। দরজা খুলে দেখি সাফি ভাই, আর সাথে একটা পিচ্চি ছেলে । বয়স বেশি হলে ১৫ হবে, দেখতে একদম ফর্সা রাজপুত্রের মত। মোটাও না, স্লিম ও না, জাস্ট মিডিয়াম যাকে বলে পারফেক্ট আরকি! বুয়া চলে গেল। সাফি ভাই আমাকে বললেনঃ আদনান কোথায় রে? আমি কোন উত্তর না দিয়ে তাদের ভিতরে আসতে বললাম। ,

Comments

Scroll To Top