একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প –৮


amiseosokha 2018-12-28 Comments

একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প –৭

একটু পরে জয়কে থামতে বলে নীতা ; কিছুক্ষণ জয়ের ঘেমে ওঠা শরীরটার দিকে নেশাগ্রস্তের মতো তাকিয়ে থাকে অপলকে;তারপর জয়কে বলে,’এবার আমার পাায়ের প্রতিটা আঙুল ভিজিয়ে দাও মুখের লালায়;মনে হয় আামার পায়েে তোমার নরম জিভের ছোঁয়া কিছুক্ষণ ভলোই লাগবে ‘জন হঠাত পায়ে হাত দিয়ে ফেলে ,গর্জে ওঠে নীতা,হাত দুুটো মাথার পেছনে রাখো জয় ,জিভ ছাড়া কোনো কিছুর ছোঁয়া আমি চাই না আমার পায়ে’|জয় চমকে উঠে হাত দুটো মাথার পেছনে করে ; ধীরে ধীরে জিভটা ঠেকায় নীতার ডান পায়ের পাতায়|নরম জিভের আলতো ছোঁয়ায় মৃদু শিহরণ খেলে যায় নীতার শরীরে|জয় গভীর আশ্লেষে জিভটা বুলোতে থাকে নীতার পায়ের পাতায়|নীতা একটুুক্ষণ চোখ বুজে থাকে, পরে আবার হাতে তুুলে নেয় ম্যাগাজীনখানা|

অলসভাবে পাতাগুলো ওল্টাতে ওল্টাতে নীতা হঠাত ওর বাঁপায়েের আঙুুলগুলো দিয়ে চেপে ধরে জয়ের দ্ণ্ডটা|তীব্র উত্তেজনায় ছটপট করে ওঠে জয়|ভুলে যায় নিজের দাসত্বের কথা,সজোরে দাঁত বসিয়ে দেয় নীতার পেলব কোমল পায়ের পাতায়; তীব্র যন্ত্রণায় চিতকার করে ওঠে নীতা ,পরক্ষণেই লাথি মারে জয়কে,হুমড়ি খেয়ে পড়ে যায় জয়|

অবাক বিস্ময়ে বাঁপায়ের পাতায় ফুটে ওঠা দাঁতের কামড়ের চিহ্ণটার দিকে তাকায় নীতা|আমৃত্যু দাসত্বের চুক্তিতে সই করা ক্রীতদাসের অপরিসীম স্পর্ধা স্তম্ভিত করে নীতাকে,উঠে দাঁড়ায় নীতা| পাশে পড়ে থাকা থলিতে হাত ঢুকিয়ে লম্বা দড়ির টুকরো কটা হাতে তুলে নেয় ও|তারপর বাঁহাতে মুঠো করে ধরে জয়ের চুলগুলো,টানতে টানতে নিয়ে গিয়ে দাঁড় করায়় একটু দূরে থাকা দুটো গাছের মাঝখানে|দুদিকের গাছের দুটো ডালের সাথে এমনভাবে টানটান করে বাঁধে ওর হাতদুটো যাতে জয়ের পায়ের তলা দুটো পুরোপুুুুরি মাটির ছোঁয়া না পায় |এবার নীতা অবিশ্বাস্য দ্রুততায় পাশের দীর্ঘ গাছটা থেকে একটা লিকলিকে ডাল কেটে নেয়,গিয়ে দাঁড়ায় জয়ের পেছনে|

জয়ের টানটান হয়ে থাকা দীর্ঘ পেশীপুষ্ট নগ্ন শরীরের দিকে তাকায়,ভালো করে দ্যাখে সূর্যের আলোয় ঊজ্জ্বল ওর ফর্সা পিঠটাকে| একটু পাশে সরে যায়,হিস হিস স্বরে বলে,’তোমার মতো জংলি জানোয়ারকে কিভাবে পোষ মানাতে হয় তা আমার ভালো করেই জানা আছে জয় ‘;পরমুহূ্র্তে প্রচণ্ড জোরে হাতের ডালটা আছড়ায় জয়ের খোলা পিঠে |সারা শরীরে আগুনের তীব্র হল্কা অনুভব করে জয়,তীব্র যন্ত্রণায় কেঁপে ওঠে ওর দেহটা|অনেক চেষ্টা করেও গলা দিয়ে বের হয়ে আসা আর্তনাদটাকে ধরে রাখতে পারে না ও|নীতা তীব্রস্বরে হেসে ওঠে,গিয়ে দাঁড়ায় ওর সামনে|ওর দীর্ঘদণ্ডটাতে হাতের ডালটা ছোঁয়ায়|জয়ের দৃঢ় হয়েই থাকা পুরূষাঙ্গটা এখন খুব দ্রুত আরো কঠিন হয়ে ওঠে |

নীতার হাতের সরু লিকলিকে ডালটা এবার বাতাসে শিষ কেটে এসে পড়ে জয়ের খোলা উরুতে|লম্বা হয়ে পড়ে যাওয়া লাল দাগটার দিকে তাকায় নীতা|এবার আবার জয়ের পেছনে গিয়ে দাঁড়ায় ও|হাতের বেতটা ওর খোলা পিঠে হাল্কাভাবে বুলোতে বুলোতে প্রশ্ন করে,’তুমি কি আমাকে সত্যিই ভালোবাসো জয়…আমার জন্যে এখনো সবকিছু করতে পারো তুমি ? কি জয়, চুপ করে আছো কেন,বলো…উত্তর দাও জয়?’ভয়ের…যন্ত্রণার… এক তীব্র শিরশিরানি মাখা অনুভূতি দীর্ঘ নগ্ন শরীরে জড়িয়ে ফিসফিস করে জয় বলে ওঠে,’পারি,মিস্ট্রেস,পারি…তোমাকে আনন্দ দেওয়ার জন্য সবকিছু পারি আমি………তোমার যা খুশি করো আমাকে নিয়ে….যত খুশি যন্ত্রণা দাও…যন্ত্রণায় মরে যেতে যেতেও আমি ভালোবাসব তোমাকে….’নীতার চোখদুটো তীক্ষ্ন হয়ে ওঠে,স্বরে তীব্র কাঠিন্য মিশিয়ে বলে,’তাই?দেখা যাক তাহলে…’নীতা আবার একটু পিছিয়ে যায়..তারপর জয়ের খোলা সাদা ধবধবে পিঠটায় শরীরের সমস্ত শক্তি দিয়ে হাতের কাঁচা ডালটা আছড়াতে থাকে…প্রায় বৃষ্টির মতো দ্রুত বেতটা পড়তে থাকে জয়ের সারা শরীরে,বেতের তীব্র শিষ দেওয়া শব্দে কাছের গাছগুলো থেকে পাখিগুলো ডানা ঝাপটিয়ে উড়ে পালাতে থাকে…..জয় দাঁতে দাঁত চেপে ধরে প্রতিমুহূর্তে ধেয়ে আসা যন্ত্রণাটাকে চেষ্টা করতে থাকে সহ্য করার ..কিছু্ক্ষণের মধ্যে জয়ের উলঙ্গ শরীরটা চিতাবাঘের মতো দাগে ভরে যায়…

একটু পরে হঠাত হাতের কাঁচা ডালটা দূরে ছুঁড়ে দেয় নীতা…..খুব দ্রুত জয়ের হাতের বাঁধনগুলো খুলে বাঁহাতে ওর চুলের মুঠিটা শক্ত করে ধরে পাগলের মতো ওর মুুখে চুমু খেতে থাকে …..একসময় ওর পুরো জিভটা জয়ের মুখের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয় নীতা ….তীব্র আশ্লেষে প্রায় শুষে নিতে থাকে জয়ের মুখের ভেতরটা….তীব্র উত্তেজনায় জয়ের সারা শরীরটা কেঁপে কেঁপে ওঠে…..নীতা আবার চুুমু খায় জয়ের মুখে….এবার মুখটা ঠেকায় বেতের মারে লাল হয়ে যাওয়া দাগগুলোতে….চুমু খেতে খেতে ক্রমশ দাঁড়িয়ে থাকা জয়ের সামনে হাঁটু মুড়ে বসে ওর শক্ত পুরুষাঙ্গটা মুখের মধ্যে পুরোটা ঢুকিয়ে নেয় ও ….মৃদুভাবে কামড় দিতে থাকে….এবার ওর কোষদুটোকে হাতের মুঠিতে ধরে মৃদু চাপ দিতে দিতে গভীর আশ্লেষে ফিসফিস করে বলতে থাকে,’আমিও….আমিও ভীষণ ভালোবাসি আমার সেই গোলাামকে…যার শরীরের প্রতিটি অংশ,প্রতি রক্তবিন্দু আমার আনন্দের জন্য….আমার দেওয়া তীব্র যন্ত্রণা সারা শরীরে মেখে যে সবসময় ভাববে আমার কথা…যার দিনরাতের প্রতিমুহূর্ত জুড়ে থাকবে আমাার শরীরী ছোঁয়া পাবার তীব্র আকাংঙ্খা…আমার শরীরী গন্ধ মাতাল করে তুলবে যাকে…..তুমি আমার সেই গোলাম জয় যার ভালোলাগা ভালোবাসা সবকিছু আমি’…বলতে বলতে নীতা জয়ের দুপা জড়িয়ে ধরে…তারপর দুুুপায়ের পাতায় মুখ ঘষতে ঘষতে বলে,জয়,কিন্তু আজ…আজ অন্য এক স্বাদ চাই আমি…শুধু আজকের মতো তুমি আমাকে তোমার ক্রীতদাসী বানাও জয়…আমি চাই আমার গোলামের কর্তৃত্ব আমার সারা শরীর জুড়ে…তুমি আমাকে সম্পূর্ণ ভোগ করো জয়,যেমন নির্মমভাবে একজন মনিব ভোগ করে তার ক্রীতদাসীকে…সেই তীব্র আস্বাদ চাই আমি…..কি জয় তুমি আমাকে সেই স্বাদ দেবেনা জয় ?কি জয়,বলো না ?’

ঘটনার আকস্মিকতা কয়েক মুহূর্তের জন্য বিমূঢ় করে তোলে জয়কে….পরমুূহূর্তে দীর্ঘদিনের গোলামীর মধ্যে ঘুমিয়ে থাকা পৌরুষ জেগে ওঠে,ক্রীতদাস জীবনের অতৃপ্ত যৌনবাসনা পূরণের সম্ভাবনা মুহূর্তের মধ্যে পাগল করে তোলে জয়কে….পায়ে মুখ ঘসতে থাকা নীতাকে পা দিয়ে সজোরে কঠেলে দিয়ে তীক্ষ্নস্বরে বলে ওঠে,’তবে তাই হোক নীতা ,তুমি এক্ষুণি হবে তোমার ক্রীতদাসের খেলার পুতুল..বলে জয় প্রায় ঝাঁপিয়ে পড়ে মাটিতে পড়ে যাওয়া নীতার উপর… খুব দ্রুত নীতার শরীরের পোষাকগুলো খুলতে থাকে….একসময় সম্পূর্ণ নগ্ন করে ওকে..প্রায় ঝাঁপিয়ে পড়ে চিত হয়ে মাটিতে পড়ে যাওয়া নীতার শরীরের ওপর চেপে বসে ও …..নীতার সাদা শাঁখের মতো স্তনের তীক্ষ্ন হয়ে ওঠা বোঁটা দুটোকে দুআঙুলের মাঝে নিয়ে তীব্রভাবে মোচড়াতে থাকে….দুহাতের মুঠোয় মধ্যে নিয়ে কঠিনভাবে দলতে থাকে সুগঠিত স্তনদুটোকে…নীতা যন্ত্রণায় কাতরে ওঠে….সাথে সাথে জয় পাশে পড়ে থাকা নীতার খুলে নেওয়া প্যান্টিটা ঢুকিয়ে দেয় মুখে……এবার পাশে পড়ে থাকা নীতার ছুঁড়ে দেওয়া গাছের কাঁচা ডালটা তুলে নেয়….দ্রুত নীতাকে জোর করে উপুড় করে জয়…. তারপর নীতার খোলা নিতম্বে সজোরে হাতের ডালটা দিয়ে আঘাত করে….নীতা যন্ত্রণায়় আর্তনাদ করে ওঠে….এর আগে কেউ কোনোদিন আঘাত তো দূরের কথা,নীতার বিনা অনুমতিতে নীতার শরীর স্পর্শ করেছে বলেও নীতা মনে করতে পারে না…কিন্তু এই তীব্র অনুভূতি…..এই মর্ষকামী মন,নিজের ভালোবাসার মানুষের কাছে নিপীড়িত,লাঞ্ছিত হবার এই অনন্য অাস্বাদ এর আগে কোনোদিন কি ও পেয়েছে ?

Comments

Scroll To Top