আনসেন্সর্ড গার্লস্ গ্রুপ – অচেনা কাকুর কাছ থেকে হালকা সুখ


(Ochena Kakur Kache Halka Sukh)

Kumkumdas 2018-04-24 Comments

আনসেন্সর্ড গার্লস্ গ্রুপ – আজকের রাজশাহীর আবওহাওয়া এমনি মাতাল করা।

টিউশন করতে গিয়েছিলাম। আসার সময় আর অটো পাই না। কিছুদূর হেটে আসার পর অটো পেলাম । একটা বছর পয়তাল্লিশ বা তারও বেশি হতে পারে এমন একজন লোক বসা। তার পাশে অল্পবয়সী আরো একজন। উঠতেই হলো। তাড়াতাড়ি না ফিরলে হলের গেট বন্ধ হয়ে যাবে। আজকাল প্রভোস্ট ম্যাম বেশী কড়াকড়ি করতেছে। যাই হোক।

পদ্মা রিসোর্টের কাছে এসে অল্পবয়সী ছেলে টা নেমে গেলো। মেয়েদের ষষ্ঠেন্দ্রীয় নাকি জোরালো হয়। আমারও কেন জানি মনে হচ্ছিল কিছু একটা অন্যরকম হবে। হলো ও তাই।

পুরো অটোতে ঐ মধ্যবয়স্ক আঙ্কেল টা আর আমি। অটোর চার্জ শেষের দিকে আর ঝড় হবে হবে ভাব, তাই অটোওয়ালা মামা ও আর লোক নেয়নি। লোকটা এরমধ্যে পকেট থেকে মোবাইল নেওয়ার বাহানায় দুবার হাত আর কনুই আমার শরীরে স্পর্শ করিয়েছে। শর্টকাট পথ নেওয়ার জন্য অটোওয়ালা মামা কেন যেন লন্চঘাটের পথ টা নিলো।

ভাগ্যের কী লীলা! এই পথে এসে পড়লাম মালবাহী ট্রাকের জ্যামে। একটু পর এমন অবস্থায় পড়লাম সামনে ট্রাক, দুপাশে ট্রাক আর পিছনে বালুর ভ্যান, তার পেছনেও ট্রাক। মানে পুরো আটকা। এরমধ্যে শুরু হলো বৃষ্টি । রুমমেট কে ফোন দিয়ে জানালাম দারোয়ান কে বলতে যে আমি বৃষ্টি তে আটকা পড়েছি, আসলে যেন গেট খোলা নিয়ে ঝামেলা না করে।

বৃষ্টির জন্য অটোর পর্দা টেনে দিতে হলো। আমার পাশের পর্দা আমি টানতে পারছিলাম না, পাশের আঙ্কেল টা হেল্প করতে আসলো।পর্দা টানতে এসে উনি একটু আমাকে ধরলেন। আমি কিছু বললাম না, ভাবলাম টাল সামলাতে পারেন নি হয় তো। মিনিট তিনেক পর উনি ওনার বাম হাত ছড়িয়ে পেছনে রাখলেন, যা আমার খোলা কাধে লাগছিলো।একটুপর ওই হাত টা আরেকটু নিচে নামালেন, এইবার তা প্রায় পিঠের মাঝ বরাবর ।আমি বুঝতে পারছিলাম উনি ইচ্ছে করে করছেন । কিন্তু এগুলো এখন গা সওয়া হয়ে গেছে। তাই প্রশ্রয় দিচ্ছিলাম, ক্লান্ত ছিলাম, ঝামেলা করার মুড ছিলো না।

উনিও বুঝে গেলেন যে আমি ঝামেলা করবো না। এইবার হাতটা নাড়াতে শুরু করলেন। আমার পিঠ আর কাঁধে রীতিমতো ঘষতে লাগলেন ।আমি এখনো চুপ।উনিও কথা বলছেন না। আমরা কেউ কারোর দিকে তাকাচ্ছি না। হাতটা নিচে এনে কোমরের কাছে বেড় দিয়ে ধরে থাকলেন। কিছুখন এরমধ্যে ড্রাইভার মামা পাশের দোকানে সিগারেট খেতে নেমে গেলো, ওনাকেও ডাকলো, উনি গেলেন না।

এবার মাত্র আমরা দুজন। চারপাশে শুধু ট্রাক আর বৃষ্টি । উনি আরো সাহসী হলেন, আমি ও ভাবলাম দেখি কী হয় । উনি ডান হাতটা এনে আমার ডান স্তন জোরে আকড়ে ধরলেন, তারপর আস্তে আস্তে মর্দন করতে শুরু করলেন । বাম হাতটা দিয়ে ও পিঠের ভাজ গুলো ডলছেন সমানে।

আমিও এবার ব্যাকসীটে এলিয়ে বসলাম। কারণ এইসব মাঝবয়সী ছা পোষা মানুষ গুলোর দৌড় এই পর্যন্তই । সুযোগ পেলে একটু কায়ামন্হন আর হস্তমৈথুন টাইপ। আর ঘটনা যখোন আটকাতে গেলে জটিলতা বাড়বে, ঘটতে দেই বরং।

এবার আঙ্কেলের জন্য আরো সুবিধা হলো। তার দু হাতের তালু তে আমার দু স্তন, অবিরত আরামদায়ক মন্হন। আমার যোনিটা একটু একটু পিচ্ছিল হচ্ছে, কেননা আমিও উপভোগ করছি।

আমি একটা হাত দিয়ে ওনার শিশ্ন টা প্যান্টের ওপর থেকে চাপ দিচ্ছিলাম, ভালো লাগছিলো। ওনার শিশ্ন দৃঢ় হয়ে আছে। উনি এবার জামার ভিতরে হাত দিতে চাইলেন।

আমি ব্রা এর নীচ দিয়ে স্তন বের করলাম ডান পাশের টা। উনি এবার আরো জোরে জোরে মন্হন করছেন। আমিও ওনার শিশ্ন চাপছি, উনি আস্তে উহ উস করছেন। আমি জানতাম আঙ্কেল আরো এগোবে।

আমি তৈরী ও ছিলাম। জ্যাম আর বৃষ্টি তে বোর হওয়ার থেকে এভাবে তো সময় কাটুক। আঙ্কেল ওনার দুই আঙ্গুলে থুথু লাগিয়ে আমার নিপল ডলছেন। আমার যোনি আরো পিচ্ছিল হচ্ছে ।

উনি মুখ নামালেন । ডান পাশের নিপল মুখে নিলেন, একবার মাথা তুলতে যাচ্ছিলেন ।

আমি শুধু বললাম, আমি দেখছি। ব্যাস উনি নিশ্চিন্তে চুষতে থাকলেন, হালকা হালকা কামড় ও। এই অবস্হানে বাম পাশেরটাতে এইরকম কিছু করা গেলো না।

বৃষ্টি কমে আসলো। আমি ওনার মাথা টা সরিয়ে দিলাম, ব্রা আর কামিজ ঠিক করলাম । উনিও হাত সরিয়ে সোজা হয়ে বসলেন। ড্রাইভার মামা এখনো আসে নি। আমি তখনো ওনার বুকের মধ্যে । পরিস্থিতি অনুকূলে আছে দেখে উনি এবার ডান হাত টা আমার নিচে দিতে চাইলেন ।

আমি আজকে খুব লুস পালাজ্জো পড়া ছিলাম। উনি সহজে কোমরের ঐখান থেকে হাত ঢুকিয়ে দিলেন, আস্তে করে জিজ্ঞেস করলেন, “দেবো?”

আমি কিছু বললাম না। উনি ঐখানে আঙ্গুল দিয়ে নাড়াচাড়া করছেন, মাঝে মাঝে চেপে চেপে ধরছেন।

মধ্যমা আঙ্গুলের মাথা টা চেপে ঢোকাতে চাইছেন, কিন্তু পারছেন না। আমার নীচে তখোন আরো পিচ্ছিল হচ্ছে।

এরপর জ্যাম সরতে শুরু করলো। আমি ওনার হাতটা ধরে বের করে দিলাম। আমরা দুজনেই ঠিক হয়ে বসলাম । ড্রাইভার মামা আসলেন। এসেই আমাদের, বিশেষত আমার দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, ” জামের মধ্যে খুব সমস্যা হয়েছে কি?”

আমি হেসে বললাম “না”।

উনি বললেন, “প্রায় পন্চাশ মিনিট এখানে দাড়াতে হলো।”

এরপর বাকী পথ আর কিছু হলো না। কারণ ততোখনে চারিদিকে আলো আলো হয়ে গেছে। আমিও গন্তব্যে চলে এলাম। ভাড়া দেওয়ার সময় ঐ আঙ্কেল টা ড্রাইভার কে বললেন, “ওনার ভাড়া আমি দেবো। আপনি চলেন।”

ব্যাস। বৃষ্টি পড়ছে। তাই রুয়েট গেট থেকে না হেটে রিকশা নিয়েই হলে আসলাম। রুমমেট গার্ড মামা কে বলে রেখেছিল, তাই আর সমস্যা হলো না। ক্লান্তি বেড়েছে, কিন্তু হালকা লাগছে খূব।
আঙ্কেলে লালা লেগে নিপল টা বেশ মসৃন হয়ে আছে। হাতে আঙ্কেলে প্যান্ট থেকে লেগে যাওয়া ভিজে ভাবটা আছে।

দুটো অচেনা, অসমবয়সী মানুষ, অপরিকল্পিত ভাবে ভালোই সময় কাটালাম।

আপনাদের কেমন লাগবে জানিনা, আমি উপভোগ করেছি ।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top