স্বামী হলো ছেলে আর শ্বশুর হলো ভাতার – পর্ব ৩


(Swami Holo chele Ar Sosur holo Vatar - 3)

mrupa9191 2019-02-22 Comments

স্বামী হলো ছেলে আর শ্বশুর হলো ভাতার – পর্ব ২

আমি রুবির পা দুটো নিয়ে খুব ভালো করে ম্যাসাজ করতে লাগলাম। এতো সুন্দর পায়ের গড়ন দেখা যায় না। আমাকে ও বললো তুই খুব ভালো ম্যাসাজ করতে প্যারিস তো এবার থেকে রোজ আমার পা দুটো ম্যাসাজ করে দিবি। আমি বললাম নিশ্চই দেব ম্যাসাজ করে তোমার এতো সুন্দর সেক্সি পা দুটো। ম্যাসাজ করতে করতে প্রায় ২ ঘন্টা হয়ে গেলো এর মধ্যে ও ৪ টা সিগারেট খেলো। তারপর আমাকে বললো সিগার খাবি তুই ?

আমি বললাম না গো আমি সিগারেট খাই তাও খুব কম আর শুনেছি সিগার খুব কড়া হয়। তো রুবি বললো হ্যাঁ একটু কড়া তো হয় তবে আমার খুব ভালো লাগে। সব জায়গায় পাওয়া যায় না। আগের মাসে লন্ডন গেছিলাম সেখান থেকেই নিয়ে এসেছি ৫ প্যাকেট। এখন বোধহয় ৩ প্যাকেট আছে। তুই যা তো টেবিল থেকে আমার ব্যাগ টা নিয়ে আয় এখন একটা খেতে ইচ্ছে করছে।

আমি রুবি পা দুটো সযত্নে একটা কাপড়ের ওপর রেখে গেলাম ওর ব্যাগ টা আনতে। এনে রুবির হাতে দিলাম। ও ব্যাগ খুলে একটা সিগারের প্যাকেট বের করে একটা সিগার ধরালো। কি মোটা সিগার আর তেমনি বড়। ও লাইটার দিয়ে সিগারটা ধরিয়ে একগাল ধোঁয়া ভেতরে নিলো তারপরে আস্তে করে নাক আর মুখ দিয়ে ছাড়তে লাগলো। আমি আবার রুবির পা ম্যাসাজ করতে বসে গেলাম। এরমধ্যে রুবির মা মানে আমার হবু শাশুড়ি ভেতরে এলেন এসে রুবিকে বললেন শোন্ রবিন আজ এখানে খেয়ে যাবে।

আমি বললাম না মা আজ না অন্যদিন খেয়ে নেবো। উনি আমার দিকে একটা সেক্সি ভাব করে দেখলেন। সত্যি মহিলা এখনো যা সেক্সি যে কারুর বুকে ঝড় তুলে দেবে। আমি লজ্জায় মাথা নামিয়ে নিলাম। তখন উনি আমাকে বললেন ঠিক আছে খাবে না যখন আমার সঙ্গে এস আমি তোমাকে একটা জিনিস খাওয়াই। আমি রুবির দিকে তাকালাম ও বললো যা মায়ের সঙ্গে কিছু স্পেশাল বানিয়েছে নিশ্চয় খেয়ে আয়। আমি উনার সঙ্গে ভেতরের ঘরে গেলাম। উনি পেছন ঘুরে দেখলেন তারপরে আমার হাত ধরলেন।

আমার ভয় করছিলো। উনিও আমার থেকে ৩” মতন লম্বা। এরপরে উনি আমাকে কাছে টেনে নিলেন আমি হুমড়ি খেয়ে উনার বুকের ওপর পড়লাম। উনি সেই সময় আমার মাথায় হা দিয়ে আমাকে উনার বুকে চেপে ধরলেন। আমি বললাম এটা কি করছেন মা আপনি ? উনি বললেন অরে মা তো ছেলেকে আদর করতেই পারে তাই না ? আমি লজ্জা পেয়ে গেলাম এবার। আমি ও হ্যাঁ তাই তো বলে উনাকে জড়িয়ে ধরে আদর করতে লাগলাম। এরপরে উনি আমার মুখটা তুলে আমার ঠোঁঠে ঠোঁঠ লাগিয়ে চুমু খেতে লাগলেন।

আমি দেখলাম এখানে বাধা দেওয়ার থেকে মজা নেওয়াই ভালো বলে আমিও উনার ঠোঁঠে ঠোঁঠ ডুবিয়ে গভীর কিস করতে লাগলাম। একটু পরে আমাদের সম্বিৎ ফিরে এলো। আমি বললাম মা এবার আমাকে বাড়ি ফিরতে হবে। উনি বললেন হ্যাঁ অনেক রাত হলো তুমি এবার এস। এরপরে উনি আবার আমাকে ধরে চুমু খেলেন। এরপরে আমি রুবির কাছে গিয়ে বললাম আজ আমি আসছি গো। ও বললো ঠিক আছে সাবধানে যাস। পৌঁছে একটা ফোন করে দিস আমি মাথা নেড়ে রওনা দিলাম।

বাড়ি ফিরে খালি রুবির মায়ের কথা মনে হচ্ছিলো এখনো উনি কি সেক্সি। আর রুবি তো একটা আগুন বোমা। ভয় পাচ্ছিলাম যদি রুবিকে বিয়ের পরে খুশি করতে না পারি ? ওর শরীরে যা চুল ও তো ভীষণ সেক্সি। যদি ও সন্তুষ্ট না তাহলে তো আমাকে ছিঁড়ে খাবে। এইসব ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে পড়লাম। সকালে মায়ের ডাকে ঘুম ভাঙ্গলো মা বললেন আর দুদিন পরে তোর বিয়ে আর তুই এতক্ষন ধরে ঘুমোচ্ছিস। আমি বললাম আর কোনো কাজ বাকি আছে কি মা ? উনি বললেন যা তোর বাবার কাছে গিয়ে দেখ আর কোনো কাজ বাকি আছে কিনা।

আমি বাবার ঘরে গেলাম দেখলাম দরজা ভেজানো আছে শুনলাম বাবা কার সঙ্গে যেন কথা বলছেন। আমি কান পেতে শুনতে লাগলাম। শুনলাম বাবা বলছে রুবি ডার্লিং তোমাকে খুব মিস করছি ভাবছি কবে তুমি আমার বাড়িতে ছেলের বৌ হয়ে আসবে আর আমরা একসঙ্গে থাকতে পারবো। রবিন তো বিয়ের ১৫ দিন পরে বেঙ্গালুরু চলে যাবে কাজে জয়েন করতে। তারপরে তো আমাদের মজা কি বলো ? আমি দরজাতে এবার টোকা মারলাম। নিজের কানে এসব শুনে মনটা খারাপ হয়ে গেলো।

তারপরে ভাবলাম এটা হয়তো বাবা অন্য ভাবে বলছে আমারই বুঝতে ভুল হয়েছে। বাবা বললেন কাম ইন। আমি ঢুকলাম তো উনি বললেন জানিস এখনি তোর হবু বৌ ফোন করেছিল। আমি না জানার ভাব করে বললাম কি বলছিলো ও তো বাবা বললেন আর কি খুব টেনশন করছিলো আমি বললাম অরে পাগলী এতো ভাবছিস কেন আমি তো আছি ভাববি তুই নিজের বাড়িতেই আছিস। আমি এবার একটু শান্তি পেলাম এই ভেবে যে আমি তাহলে ভুল শুনেছিলাম। আমি বাবাকে জিজ্ঞেস করলাম বাবা পরশু তো আমার বিয়ে আর কোনো কাজ বাকি আছে নাকি ?

বাবা বললেন সব ব্যবস্থা হয়ে গেছে এবার শুধু বিয়েটাই বাকি বুঝলি বলে হাঁসতে লাগলেন। আমার ভেতরে ভেতরে টেনশন হচ্ছিলো আবার আনন্দ ও হচ্ছিলো এই ভেবে যে একটা দারুন সেক্সি মেয়ে র সঙ্গে আমার বিয়ে হচ্ছে আর ওর মা ও খুব সেক্সি। এবার আমি নিজের রুমে গেলাম।

রুমে এসে ভাবলাম একবার রুবিকে ফোন করি। দেখলাম রুবি ফোন বিজি আসছে ভাবলাম বোধহয় কারুর সঙ্গে কথা বলছে তাই আমি ওদের ল্যান্ড ফোনে ফোন করলাম। কিছুক্ষন রিং হওয়ার পরে দেখলাম রুবির মা ফোন ধরলেন। আমি বললাম মা রুবি আছে ?

Comments

Scroll To Top